শুক্রবার   ২৩ আগস্ট ২০১৯   ভাদ্র ৮ ১৪২৬   ২১ জ্বিলহজ্জ ১৪৪০

নওগাঁ দর্পন
সর্বশেষ:
চাকুরির প্রলোভনে মান্দার মেয়েকে ঢাকায় ধর্ষণ বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের বহরে যুক্ত হওয়া বোয়িং (৭৮৭-৮) ড্রিমলাইনার গাঙচিল উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ধামইরহাটে মাদক সেবনের দায়ে ৬ জনের জেল ও জরিমানা আত্রাইয়ে ডেঙ্গু সচেতনতা মূলক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় সাপাহারে পরিস্কার অভিযান সাপাহার ঐতিহ্যবাহী জবই বিলে মাছের পোনা অবমুক্ত আত্রাই থানা পুলিশের অভিযানে ৯জন আটক গ্রেনেড হামলার প্রতিবাদে নিয়ামতপুরে আলোচনা সভা সাপাহারের করল্যা চাষে বিপ্লব
২১৮

শেষ তিন মাসে যখন শিশুর ওজন ক্রমে বাড়তে থাকে

প্রকাশিত: ১৩ জানুয়ারি ২০১৯  

গর্ভকালীন বিশেষ করে শেষ তিন মাসে যখন শিশুর ওজন ক্রমে বাড়তে থাকে, তখন মায়ের পেটের আকৃতি বাড়তে থাকে। এ বাড়তি ওজন বহন করতে মায়ের মেরুদণ্ডের কোমরের মাংসপেশিগুলো বেশি সক্রিয় থাকতে হয়। পাশাপাশি গর্ভবতী পেটের বাড়তি ওজন বহন করে কিছুটা পেছনের দিকে বাঁকা হয়ে যায়। ফলে কোমরের মাংসপেশি ও স্পাইনাল লিগামেন্টগুলো দুর্বল হয়ে যায়। তখন ব্যথা অনুভূত হয়।

 

যেহেতু এ সময় ব্যথানাশক ওষুধ খাওয়া ঠিক নয়, তাই সাধারণত মায়েরা ব্যথা সহ্য করে থাকেন। কিন্তু প্রসবপরবর্তীকালে এ ওভার অ্যাকটিভ মাংসপেশিগুলো আরও বেশি শিথিল ও দুর্বল হয়ে পড়ে এবং ব্যথা আরও বেড়ে যায়। ফলে অনেকেই ধারণা করেন, সিজারিয়ান অপারেশনের জন্য একটি ইনজেকশন দেওয়ার পর থেকে ব্যথা শুরু। কিন্তু এ জন্য ইনজেকশন দায়ী নয়। কোমরের মাংসপেশি, লিগামেন্ট ও লাম্বার লাইনের স্বাভাবিক বক্রতা বেড়ে যাওয়ায় এ ব্যথার সৃষ্টি হয়। এ ক্ষেত্রে ফিজিওথেরাপি চিকিৎসা বেশি উপকারী।

 

এ ক্ষেত্রে সুপারফিসিয়াল থার্মোথেরাপির পাশাপাশি কিছু থেরাপিউটিক ব্যায়াম করতে হবে। যেমন-স্ট্যাটিক ব্যাক মাসল এক্সারসাইজ, পেলভিক ব্রিজিং এক্সারসাইজ ইত্যাদি, যা গর্ভকালীন কোমরের মাংসপেশির শক্তি বজায় রাখে এবং গর্ভকালীন কোমর ব্যথা অনেকাংশে কমায়। প্রসবপরবর্তী ফিজিওথেরাপিও খুব গুরুত্বপূর্ণ। কোমর ও পেটের শিথিল হওয়া মাংসপেশিতে শক্তি বাড়াতে কিছু থেরাপিউটিক এক্সারসাইজ করতে হবে।

নওগাঁ দর্পন
নওগাঁ দর্পন
এই বিভাগের আরো খবর