সোমবার   ১৯ আগস্ট ২০১৯   ভাদ্র ৩ ১৪২৬   ১৭ জ্বিলহজ্জ ১৪৪০

নওগাঁ দর্পন
সর্বশেষ:
ঠাকুরগাঁওয়ে দুই বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে প্রাণ গেল ৮ জনের রাণীনগরে গোয়াল ঘরের তালা ভেঙ্গে কৃষকের ৫টি গরু চুরি পোরশায় বিদ্যুৎস্পৃষ্টে দুই বছরের শিশুর মৃত্যু রাণীনগরে মশক নিধন ও পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম উপলক্ষে র‍্যালী ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত নওগাঁয় তরুন তরুনীদের সম্মেলন অনুষ্ঠিত গনসচেতনতা সপ্তাহ উপলক্ষে নওগাঁ সদর মডেল থানা পুলিশের র‌্যালী সাপাহারে জনসচেতনতা সপ্তাহ উপলক্ষে র‌্যালী ও আলোচনা সভা রাণীনগরে গাঁজাসহ আটক ২ নওগাঁ ১১ জনের ডেঙ্গু সনাক্ত, ৮ জন চিকিৎসাধীন আত্রাই থানা পুলিশের সচেতনতা মূলক র‌্যালি অনুষ্ঠিত ধামইরহাটে গনসচেতনতা দিবস উপলক্ষে র‍্যালী অনুষ্ঠিত সাপাহারে জনসচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে মশক নিধন লিফলেট বিতরণ ৬ দফা দাবিতে নওগাঁ প্রেসক্লাবে হেযবুত তওহীদের সংবাদ সম্মেলন মান্দায় ‘মাদক ও ইভটিজিং সচেতনতা কার্যক্রম’র আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত
৬১৬

মহাদেবপুরের মহিষবাথান হাটে একটি ব্রীজের আভাবে দুর্ভোগে জনসাধারণ

প্রকাশিত: ১৫ মার্চ ২০১৯  

মহাদেবপুরের মহিষবাথান হাটে একটি ব্রীজের আভাবে দুর্ভোগে  জনসাধারণ

নওগাঁর মহাদেবপুর উপজেলার বুকচিরে প্রবাহিত আত্রাই নদীর মহিষবাথান ঘাটে ব্রীজ নির্মাণের অভাবে শিক্ষার্থীসহ হাজারো মানুষ চরম দুর্ভোগে পড়েছে।  প্রতিনিয়ত যাতায়াতে ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে স্থানীয়দের। বাধাগ্রস্থ হচ্ছে ব্যবসা-বাণিজ্যও।

বর্ষা মৌসুমে নদী ভরে গেলে প্রায় এক মাস বিদ্যালয়ের পাঠগ্রহণ থেকে বঞ্চিত হয় দেড় শতাধিক শিক্ষার্থী। সময় নদীর পূর্ব পাড়ের ছেলে-মেয়েদের জন্য স্কুল বন্ধ রাখা হয়।

এলাকাবাসীর জোরালো দাবি নদীর ঘাটে ব্রীজ নির্মাণের।

এলাকাবাসী জানায়, খাদ্যভা-ার হিসেবে খ্যাত উপজেলার মহিষবাথান হাট। ধান চাল বিক্রির ঐতিহ্যবাহী হাট বলেও পরিচিত মহিষবাথান। এখানে সরকারি খাদ্য গুদাম, ব্যাংক, উচ্চ বিদ্যালয়, সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, কিন্ডারগার্ডেন স্কুল ১৪-১৫টি বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থার (এনজিও) অফিস রয়েছে। তারপরেও আত্রাই নদীর মহিষবাথান ঘাটে ব্রীজ নির্মাণ হয়নি। ব্রীজ না থাকায় কৃষকেরা তাঁদের উৎপাদিত কৃষিপণ্য হাট-বাজারে নিতে বিড়ম্বনার শিকার হচ্ছেন। কয়েক মিনিটের পথ দীর্ঘ কয়েক মাইল ঘুরে যাতায়াত করতে হচ্ছে। বর্ষাকালে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ছোট নৌকায় এবং বছরের অন্যান্য সময় টাকা দিয়ে সাঁকোয় চলাচল করতে হয় এলাকাবাসীকে। শিক্ষার্থীদের ক্ষেত্রে ভোগান্তি আরও বেশি।

জানা গেছে, বর্ষা মৌসুমে প্রবল স্রোত পানির প্রবাহ বেশি থাকায় এখানকার অভিভাবকরা ঝুঁকি নিয়ে তাদের সন্তানদের স্কুলে পাঠানোর সাহস পান না। ফলে প্রতিবছর বর্ষাকালে প্রায় মাস এনায়েতপুর ইউনিয়নের রোধইল, হোসেনপুর, কালনা, শেরপুরসহ ৬টি গ্রামের দেড় শতাধিক ছাত্র-ছাত্রী স্কুল যেতে পারে না। এতে প্রায় মাস তাদের লেখাপড়া হয় না।

মহিষবাথান উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক তপন কুমার জানান, মহিষবাথান ঘাটে ব্রীজ নির্মাণ খুবই জরুরী। এখানে ব্রীজ নির্মাণ এলাকাবাসীর প্রাণের দাবি। বর্ষা মৌসুম এলেই স্কুলের পাঠদান ব্যাহত হয়। নদীর ভরা মৌসুমে পূর্বপারের দেড় শাতাধিক ছেলে-মেয়ে স্কুলে আসতে পারে না।

 

হাতুড় ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল মতিন জানান, দীর্ঘদিন ধরে ওই স্থানে একটি ব্রীজ নির্মাণের দাবি করে আসছে এলাকাবাসী। বিভিন্ন সরকারের সময় জনপ্রতিনিধিদের কাছে একাধিকবার দাবি তোলা হয়।

এনায়েতপুর ইউপি চেয়ারম্যান মেহেদী হাসান মিঞা জানান, বর্ষা মৌসুমে নদীর পূর্ব পারের ছাত্র-ছাত্রীরা স্কুল করতে পারে না এটা জটিল সমস্যা। তাছাড়া এলাকার কৃষিপণ্য নিয়ে ঘাট পারাপারে এলাকাবাসীকে নানা দূর্ভোগ পোহাতে হয়। আমি স্থানীয় এমপি ছলিম উদ্দীন তরফদারকে মহিষবাথান ঘাটে ব্রীজ নির্মান করার কথা বলেছি।

ব্যাপারে উপজেলা প্রকৌশলী সুমন মাহমুদ জানান, দু'বছর পূর্বে মহিষবাথান ঘাটে ব্রীজ নির্মাণের আবেদন করা হয়েছে

নওগাঁ দর্পন
নওগাঁ দর্পন
এই বিভাগের আরো খবর