সোমবার   ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯   ভাদ্র ৩১ ১৪২৬   ১৬ মুহররম ১৪৪১

নওগাঁ দর্পন
সর্বশেষ:
পত্নীতলায় আদিবাসী প্রেমিক যুগলের লাশ উদ্ধার চাকুরির প্রলোভনে মান্দার মেয়েকে ঢাকায় ধর্ষণ বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের বহরে যুক্ত হওয়া বোয়িং (৭৮৭-৮) ড্রিমলাইনার গাঙচিল উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ধামইরহাটে মাদক সেবনের দায়ে ৬ জনের জেল ও জরিমানা আত্রাইয়ে ডেঙ্গু সচেতনতা মূলক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় সাপাহারে পরিস্কার অভিযান সাপাহার ঐতিহ্যবাহী জবই বিলে মাছের পোনা অবমুক্ত আত্রাই থানা পুলিশের অভিযানে ৯জন আটক গ্রেনেড হামলার প্রতিবাদে নিয়ামতপুরে আলোচনা সভা সাপাহারের করল্যা চাষে বিপ্লব
৩২

বোনম্যারো ট্রান্সপ্লান্ট করতে হবে ঋষি কাপুরের

ডেস্ক নিউজ

প্রকাশিত: ২ সেপ্টেম্বর ২০১৯  

বলিউডে দারুণ প্রভাব কাপুর পরিবারের। সেই পরিবারের সদস্য ঋষি কাপুর কয়েক বছর যাবৎ লড়ছেন ক্যানসারের সঙ্গে। প্রথমে খবরটি পুরোপুরি গোপন রেখেছিলেন। তাঁর অসুস্থতার ব্যাপারে পরিবারের পক্ষ থেকে কঠোর গোপনীয়তা রক্ষা করা হয়। সংবাদমাধ্যম থেকে বারবার প্রশ্ন করা হলেও অনেক দিন সরাসরি কেউ কিছু বলেননি। কিন্তু একসময় সবই জানাজানি হয়ে যায়। গত বছর ২৯ সেপ্টেম্বর চিকিৎসার জন্য যুক্তরাষ্ট্রে যান ঋষি কাপুর। সেখানে নিউইয়র্কের একটি হাসপাতালে চিকিৎসা নেন। একসময় নিজেই ক্যানসার নিয়ে বলেছেন ঋষি কাপুর। ইনস্টাগ্রামে তিনি জানান, যুক্তরাষ্ট্রে টানা আট মাস তাঁর চিকিৎসা হয়েছে। আবেগাপ্লুত ঋষি কাপুর বলেন, ‘সৃষ্টিকর্তার কাছে আমি কৃতজ্ঞ। আবার জীবনযুদ্ধে ফিরতে পেরেছি। তিনি আমাকে ধৈর্য ধরতে শিখিয়েছেন। আমাকে নতুন জীবন দিয়েছেন। আমি এখন ক্যানসারমুক্ত।’ ঋষি কাপুর বলেছেন, ‘এখনো আমার অস্থিমজ্জা প্রতিস্থাপন (বোনম্যারো ট্রান্সপ্লান্ট) হওয়া বাকি আছে। সবকিছু শেষ হতে আরও দুই মাস সময় লাগবে।’

ক্যানসার থেকে মুক্ত হওয়ার পর ঋষি কাপুর বলেছেন, ‘ক্যানসার থেকে মুক্ত হয়ে নতুন করে জীবনে ফেরা মোটেও সহজ ছিল না। এর জন্য ধন্যবাদ জানাই চিকিৎসক, আমার পরিবার আর ভক্তদের। এই কঠিন সময়ে সবাই আমার পাশে থেকেছেন।’

শুধু ঋষি কাপুরই নন, বলিউডের শীর্ষ তারকাদের এমন অনেকে আছেন, যাঁরা দিনের পর দিন নানা শারীরিক সমস্যায় দিনযাপন করছেন। গতকাল এমন ছয়জন তারকার কথা আমরা জেনেছি। আজ দ্বিতীয় এবং শেষ কিস্তিতে জানা যাবে এমন ছয় তারকার কথা।

যুদ্ধ চলছে ইরফান খানের
‘যুদ্ধ জেতার পর অনেকেই ভুলে যান, তাঁর পাশে এত দিন ছিলেন কারা। কারা সাহায্য করেছিলেন এই সময়ে। আমার এই দ্রুত বদলে যাওয়া জীবনে কিছুটা হলেও সময় দিতে চাই সেই মানুষদের, যাঁরা এ সময় আমাকে ভালোবাসা দিয়েছেন আরও বেশি করেন। তাঁদের জন্যই আমি আজ সুস্থ৷ তাঁদের আমি ধন্যবাদ জানাতে চাই। আর এই জন্যই আমি দেশে ফিরেছি।’

চলতি বছর ৩ এপ্রিল টুইটারে এভাবেই নিজের অনুভূতির কথা জানান বলিউড তারকা ইরফান খান। হাসিখুশি মানুষটার শরীরে হঠাৎ করেই ধরা পড়ে জটিল এক রোগ। স্নায়ুকোষের টিউমারে আক্রান্ত হয়েছিলেন। তাঁর রোগের নাম ‘নিউরোএন্ডোক্রাইন টিউমার’। সে অবস্থায় কিছুদিন কাজ চালিয়ে যান। একসময় সেটা আর হয়ে ওঠেনি। নিতে হয় বিরতি। চলে যান যুক্তরাজ্যে। সেখানে একটি হাসপাতালে চিকিৎসা চলে দীর্ঘদিন। দীর্ঘদিন জটিল চিকিৎসার মধ্যে থাকতে হয় তাঁকে। অবশেষে ফেরেন ভারতে। বর্তমানে তিনি ভারতেই আছেন। তবে এখনো শুরু করেননি কাজ। কবে শুরু করবেন, সেটি জানা যায়নি।

ব্লাড ক্যানসারে আক্রান্ত লিসা রে 
কানাডীয় বংশোদ্ভূত অভিনেত্রী লিসা রে। মডেল থেকে অভিনেত্রী হয়েছিলেন। নুসরাত ফতেহ আলী খানের ‘আফ্রি আফ্রি’ গানটি জনপ্রিয় করে তাঁকে। বেশ চলছিল দিন। কিন্তু ২০০৯ সালের জুন মাসে ‘মাল্টিপল মাইলেমো’ নামের একধরনের ব্লাড ক্যানসার ধরা পড়ে তাঁর। এরপর দুরারোগ্য ব্যাধির সঙ্গে দুই বছর কঠিন সংগ্রামে চালিয়ে যান। চিকিৎসকদের আপ্রাণ চেষ্টা আর নিজের জীবনীশক্তির জোরেই ঘাতক ব্যাধিকে লিসা রে পরাজিত করেন। অবশেষে লিসা রে একজন ‘ক্যানসার সারভাইভার’ হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে সক্ষম হন। বর্তমানে ভারতের কেরল রাজ্যের ‘মোক্ষ’ যোগব্যায়াম শেখার কাজ করছেন। তিনি এখন যোগব্যায়ামের ওপরই বেশি গুরুত্ব দিচ্ছেন।

অনুরাগ বসুও ব্লাড ক্যানসারের রোগী
‘বরফি’ ও ‘গ্যাংস্টার’ ছবির পরিচালক অনুরাগ বসুর রক্তে ক্যানসার ধরা পড়ে ২০০৪ সালে। তাঁর জীবন নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছিল। তবে অনুরাগ লড়াই করতে জানেন। অসুস্থ অবস্থায় ‘লাইফ ইন আ মেট্রো’ ও ‘গ্যাংস্টার’ ছবির চিত্রনাট্য লিখেছিলেন। চিকিৎসার পাশাপাশি কাজও চালিয়ে গেছেন তিনি। ক্যানসারকে হারিয়ে এখন তিনি প্রায় সুস্থ। আপাতত সতর্কতার সঙ্গে চলতে হচ্ছে। নিরাপদ খাদ্য এবং বিশুদ্ধ পরিবেশে থাকতে হচ্ছে। তবে চিকিৎসকেরা জানিয়েছেন, এসব রোগ যেকোনো সময় ফিরে আসতে পারে।

হানি সিংয়ের মনের রোগ
তাঁর গানগুলো শুনে নাচতে ইচ্ছে করে। তাঁর গান বাজে না, এমন পার্টি খুব কম হয়। ভারতের সেরা পপস্টারদের মধ্যে অন্যতম সেরা ইয়ো ইয়ো হানি সিং। অথচ জানেন কি, হানি সিং দীর্ঘদিন বিষণ্নতায় ভুগেছেন? অবস্থা এতটাই খারাপ হয়েছিল যে গান–বাজনা প্রায় ছেড়েই দিয়েছিলেন। দীর্ঘদিন চিকিৎসায় থাকতে হয় তাঁকে। একসময় ফিরে আসেন বটে। তবে মাঝেমধ্যে বিষণ্নতা পেয়ে বসে থাকে।

আনুশকা শঙ্করের জরায়ুতে ১৩টি টিউমার
গতকাল শনিবারই খবরটি জানাজানি হয়। সেতারবাদক রবিশঙ্করের মেয়ে জনপ্রিয় সেতারশিল্পী আনুশকা শঙ্কর নিজেই খবরটি জানিয়েছেন। তিনি টুইটারে জানান, তাঁর জরায়ুতে ১৩টি টিউমার হয়েছিল। আর টিউমারগুলো বড় হচ্ছিল। টিউমারের কারণে তাঁর জরায়ুর আকার বড় হয়ে যায়। শেষ পর্যন্ত চিকিৎসকের পরামর্শে গত জুলাই মাসে অস্ত্রোপচার করে তাঁর শরীর থেকে জরায়ু বাদ দেওয়া হয়েছে। এখন তিনি অনেকটাই সুস্থ।

নওগাঁ দর্পন
নওগাঁ দর্পন
এই বিভাগের আরো খবর