মঙ্গলবার   ২১ মে ২০১৯   জ্যৈষ্ঠ ৭ ১৪২৬   ১৬ রমজান ১৪৪০

নওগাঁ দর্পন
৮৩

বদলগাছী হাট বাজারে কমেছে টোল আদায়

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ৯ মে ২০১৯  

নওগাঁর বদলগাছী উপজেলার হাট বাজার গুলিতে নীতিমালা উপেক্ষা করে বছরের পর বছর হাট ইজারাদাররা ক্রেতা-বিক্রেতাদের নিকট থেকে মাত্রা অতিরিক্ত টোল আদায় করে আসছে। অতিরিক্ত টোল আদায়ের বিষয়টি প্রতি বছর পত্র পত্রিকায় প্রকাশিত হয় হলেও অতিরিক্ত টোল আদায় প্রতিরোধে কোন প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়া হয় না।

উপজেলা আইন শৃংখলা সভায় দফায় দফায় আলোচনা হয়। আলোচনা আলোচনায় থেকে যায় কোন ফল হয় না। নীতিমালায় বলা আছে হাটে টোল আদায়ের তালিকা ঝুলানোর কথা থাকলেও কোন হাটেই টোল আদায়ের তালিকা পযর্ন্ত ঝুলানো হয় না।

নব নির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান ছামসুল আলম খান শপথ গ্রহনের পর হাটে হাটে অতিরিক্ত টোল আদায়ের প্রতিবাদে জনগণকে সংগে নিয়ে অতিরিক্ত টোল আদায় বন্ধে প্রতিবাদ গড়ে তোলেন। এবং হাটে হাটে মাইকিং করা হয় কৃষকদের কাছ থেকে অতিরিক্ত টোল আদায় করা যাবেনা। কৃষকদের সচেতন করতে টোল আদায়ের তালিকা ফটোকপি করে হাটুরিয়াদের হাতে হাতে দেওয়া হয়। এর এক পর্যায় কৃষকরা টোল না দিতে সক্রিয় হয়ে উঠে। দু এক হাটে ইজারাদারের লোক জনের সংগে হাটুরিয়াদের ধস্তা-ধস্তিও হয়। এক পর্যায়ে নিরুপায় হয়ে বদলগাছী হাটের ইজারাদার কাঁচা তরি-তরকারী ব্যবসায়ী ও মহাজনদের মালামাল কেনা কাটা করতে নিষেধ করেন। ব্যবসায়ীরা মালামাল কেনা কাটা না করে হাটে বসে থাকেন।

এ সময় হাট ইজারাদারের লোকজন উপজেলা চেয়ারম্যান বা তার লোকজনকে বলেন এ অবস্থা চলতে থাকলে ব্যাপারীরা হাটে মালামাল কিনবেন না। ঐ দিন বদলগাছী থানায় গোল চত্তরে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সহ উপজেলা চেয়ারম্যান এবং ইজারাদার ও ব্যবসায়ীরা বসে একটি সমজোতা করেন। কৃষকের কাছে থেকে টোল তোলা হয় মন প্রতি ১৫/২০ টাকা সমজোতার মাধ্যমে মন প্রতি ৫ টাকা টোল আদায় করার সিদ্ধান্ত গৃহিত হয় কৃষকদের কাছ থেকে । এবং শর্ত দেওয়া হয় এ সিদ্ধান্ত শুধু চলতি বছরের জন্য। আগামী বছর থেকে কৃষকদের কাছ থেকে কোন প্রকার টোল নেওয়া যাবে না। সরকারি নীতিমালা অনুসারে আলু, পটল, বেগুন মন প্রতি ৭ টাকা টোল নিতে পারবেন ক্রেতার কাছ থেকে। কিন্তু নেওয়া হয় ক্রেতা-বিক্রেতার কাছ থেকে।

বিশিষ্ট ব্যবসায়ী নুরুল ইসলাম এডু জানায়, ইজারাদার সমজোতা না হওয়া পযর্ন্ত হাটে মাল কিনতে নিষেধ করেন হাটের সব ব্যবসায়ীদের। তাই আমরা ঐ দিন মালামাল কিনলাম না। কৃষকরাও আলু, পটল, বেগুনসহ বিভিন্ন জিনিস পত্র নিয়ে বসে ছিলেন। বিক্রি করতে পারছেন না। এক পর্যায়ে বসে সমজোতা করা হয়। ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে টোল আদায় করা হবে মন প্রতি ১০ টাকা এবং একই জিনিসের কৃষকের কাছ থেকে নেওয়া হবে মন প্রতি ৫ টাকা।

কৃষক বেলাল , আয়নাল, নেজাম ও রহমান জানান, আগে আলু, পটল ও বেগুনের মন প্রতি ১০ টাকা ২০ টাকা এমনকি ৩০ টাকা পর্যন্ত খাজনা আদায় করতো এখন নিচ্ছে ৫ টাকা। ছাগল, গরু সহ অনান্য জিনিস পত্রের ক্ষেত্রে এখনও অতিরিক্ত হারে টোল আদায় করা হচ্ছে।

এ বিষয়ে কোলা হাটের ইজারাদার ফেরদৌসের সংগে কথা বললে তিনি বলেন, উপজেলা চেয়ারম্যান হাটে হাটে ম্যাইকিং করে হাটের পরিবেশ নষ্ট করছেন। আমরা নীতিমলা অনুসারে টোল আদায় করি। কৃষকের কাছ থেকে কোন টোল আদায় করি না।

উপজেলা চেয়ারম্যান জানান বদলগাছীর হাট বাজারগুলিতে অতিরিক্ত টোল আদায়ের মহোৎসব চলছে। আমি অতিরিক্ত টোল আদায়ের প্রতিবাদ করেছি।

অপরদিকে হাট ইজারাদাররা দাবী করেছে চলতি বছরে অতিরিক্ত অর্থ দিয়ে হাট ডেকে নিয়েছেন। নীতিমালা অনুসরণ করলে তাদের ঘাটতি হবে। অতিরিক্ত টোল আদায়ের তিন গুণ কমিয়ে কৃষকের কাছ থেকে ৫ টাকা নেওয়ার দাবি জানিয়েছেন এবং তাদের এ আবেদন মেনে নেওয়া হয়েছে। শর্ত থাকে আগামী বছরে কৃষকের কাছ থেকে কোন অতিরিক্ত টোল আদায় করতে পারবে না।

এ বিষয় উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাসুম আলী বেগ জানান, আমরা মাঝে মধ্যেই অতিরিক্ত টোল আদায়ের প্রতিরোধে হাট বাজার গুলিতে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করি। যাতে করে কৃষকরা কোন প্রকার হয়রানী না হয়।

 

স/নু/৫

নওগাঁ দর্পন
নওগাঁ দর্পন
এই বিভাগের আরো খবর