ব্রেকিং:
নওগাঁর মহাদেবপুরে বিএনপির সম্মেলনে দু’গ্রুপের সংঘর্ষে আহত ১০, আটক ৫

মঙ্গলবার   ১০ ডিসেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ২৫ ১৪২৬   ১২ রবিউস সানি ১৪৪১

নওগাঁ দর্পন
সর্বশেষ:
আবরার ফাহাদ হত্যার ঘটনায় বুয়েটের ২৬ জন শিক্ষার্থীকে স্থায়ী বহিষ্কার ও ৬ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে শাস্তি দিয়েছে বুয়েটে প্রশাসন
১২০

বদলগাছীতে ভিজিএফের স্লিপ নিয়ে বিরোধ

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ৯ আগস্ট ২০১৯  

নওগাঁর  বদলগাছীর মিঠাপুর ইউনিয়নে ভিজিএফ এর স্লিপ ভাগাভাগি নিয়ে সৃষ্ট বিরোধ নিয়ন্ত্রণ করতে গিয়ে পুলিশ কর্মকর্তা প্রহৃত হয়। এ ঘটনায় উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতিসহ তিনজনকে গ্রেপ্তার করে বদলগাছী থানা পুলিশ।

ঘটনার বিবরণে জানা যায়, বৃহস্পতিবার সকাল ১০ টার পর থেকে মিঠাপুর ইউনিয়ন পরিষদে ঈদ উদযাপন উপলক্ষে দুস্থদের মাঝে ভিজিএফ এর চাল বিতরণ করা হয়। এর এক পর্যায়ে থানা যুবলীগের স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক রুহুল আমীন চেয়ারম্যান ফিরোজ হোসেনের কাছে যুবলীগের পক্ষ থেকে স্লিপের ভাগ দাবী করে।

এ নিয়ে চেয়ারম্যানের সঙ্গে তার বাগ-বিতন্ডা হয়। এক পর্যায়ে খাদাইল গ্রামের আতিকুর রহমানসহ ১৫/২০ জন যুবক রুহুলকে পরিষদের ছাদের উপর ডেকে নিয়ে তাকে মারপিট করতে থাকে। এ সময় ছাত্রলীগের সভাপতি ফয়সাল রুহুলকে রক্ষা করতে যায়। খবর পেয়ে বদলগাছী থানার এএসআই মাহাবুব রুহুলকে হেফাজত করে। কিছু পরে দু পক্ষে ধাওয়া পাল্টা-ধাওয়া শুরু হয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে পুলিশ দু পক্ষকেই সরিয়ে দেয়।

এ সময় রুহুলের ছেলে মুরাদ এএসআই মাহাবুবকে পিছন দিক থেকে বাটাম দিয়ে একটি আঘাত করে। এসময় পরিস্থিতি আরও উত্তপ্ত হয়। এএসআই মাহাববের গায়ে হাত তোলার অপরাধে থানা পুলিশ ছাত্রলীগের সভাপতি ফয়সালসহ রুহুল ও তার ছেলে মুরাদকে গ্রেপ্তার করে।

রুহুলের ছেলে মুরাদ জানায় আমি মাহাবুব স্যারকে মারিনি। আমার আব্বাকে মারপিট করেছে আতিকসহ চেয়ারম্যানের লোকজন। আমি আতিকুরকে বারি মেরেছি আতিক সরে যাওয়ায় মাহাবুব স্যারকে আঘাত লেগেছে।

ছাত্রলীগের সভাপতি ফয়সাল জানায়, রুহুলকে মারপিট করা দেখে আমি এগিয়ে যাই। আমি পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনের চেষ্টা করি। তারপরও আমাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। 

মিঠাপুর গ্রামের আজাদুল ইসলাম জানান, ফয়সাল এবং রুহুল এখানে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করার জন্য এসেছে।

তিনি আরও জানান, ফয়সাল এবং তার ভাই কাওসার এরা মাদক ব্যবসায়ী। এরা সবসময় মাদক সঙ্গে নিয়ে ঘোরে। কোনো মাদকসেবী সামনে পড়লে তাকে একপুরা গাঁজা বা হেরোইন সেবন করার জন্য দেবে। এছাড়া আরও ২/৪ পুড়িয়া তাকে রাখতে দিবে।

এরপর ফয়সাল পুলিশ অথবা র‍্যাবকে ফোন দিয়ে ঐ ব্যক্তিকে ধরিয়ে দিবে। এভাবে সে এলাকার অনেক লোকের ক্ষতি করেছে। তার উপযুক্ত বিচার হওয়া উচিত। 

এবিষয়ে এএসআই মাহাবুবের সঙ্গে কথা বললে তিনি জানান, রুহুলকে ছাদের উপর মারতে দেখে আমি পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এনে রুহুলকে রক্ষা করি। কিন্তু তার ছেলে আমাকে এসে মেরেছে। পুলিশের গায়ে হাত তোলার অপরাধে ও এলাকার পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে তিনজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। 

মিঠাপুর ইউপি চেয়ারম্যান ফিরোজ হোসেন জানান, আমি দুস্থদের মাঝে ভিজিএফএর স্লিপ বিতরণ করে দিয়েছি। কিন্তু চাল বিতরণের সময় বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করার উদ্দেশ্যে রুহুল ও ফয়সাল এসে স্লিপের ভাগ দাবি করে বিরোধ সৃষ্টি করে এবং পুলিশ তাদের গ্রেপ্তার করেছে।

বদলগাছী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জালাল উদ্দিন জানান, তিন জনকে আটক করে থানায় আনা হয়েছে। ভিজিএফ চাল বিতরণের সময় আতিকুরসহ বেশ কয়েকজন রুহুলকে মারপিটের ঘটনা নিয়ে এ পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়।

নওগাঁ দর্পন
নওগাঁ দর্পন
এই বিভাগের আরো খবর