রোববার   ১৮ আগস্ট ২০১৯   ভাদ্র ২ ১৪২৬   ১৬ জ্বিলহজ্জ ১৪৪০

নওগাঁ দর্পন
সর্বশেষ:
ঠাকুরগাঁওয়ে দুই বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে প্রাণ গেল ৮ জনের রাণীনগরে গোয়াল ঘরের তালা ভেঙ্গে কৃষকের ৫টি গরু চুরি পোরশায় বিদ্যুৎস্পৃষ্টে দুই বছরের শিশুর মৃত্যু রাণীনগরে মশক নিধন ও পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম উপলক্ষে র‍্যালী ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত নওগাঁয় তরুন তরুনীদের সম্মেলন অনুষ্ঠিত গনসচেতনতা সপ্তাহ উপলক্ষে নওগাঁ সদর মডেল থানা পুলিশের র‌্যালী সাপাহারে জনসচেতনতা সপ্তাহ উপলক্ষে র‌্যালী ও আলোচনা সভা রাণীনগরে গাঁজাসহ আটক ২ নওগাঁ ১১ জনের ডেঙ্গু সনাক্ত, ৮ জন চিকিৎসাধীন আত্রাই থানা পুলিশের সচেতনতা মূলক র‌্যালি অনুষ্ঠিত ধামইরহাটে গনসচেতনতা দিবস উপলক্ষে র‍্যালী অনুষ্ঠিত সাপাহারে জনসচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে মশক নিধন লিফলেট বিতরণ ৬ দফা দাবিতে নওগাঁ প্রেসক্লাবে হেযবুত তওহীদের সংবাদ সম্মেলন মান্দায় ‘মাদক ও ইভটিজিং সচেতনতা কার্যক্রম’র আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত
৭৯

দেশের ৬০ শতাংশ কম্পিউটার বিপজ্জনক ভাইরাসে আক্রান্ত

ডেস্ক নিউজ

প্রকাশিত: ১০ জুন ২০১৯  

সাইবার নিরাপত্তা সেবাদাতা ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান ক্যাসপারেস্কির চলতি বছরের এক প্রতিবেদন অনুযায়ী বর্তমানে বাংলাদেশে ব্যবহৃত ৬০ শতাংশ কম্পিউটার প্রায় ২০ ধরনের বিপজ্জনক ভাইরাসে আক্রান্ত। এছাড়া প্রতি ১০০ জন স্মার্টফোন ব্যবহারকারীর মধ্যে ২৮ জনই ম্যালওয়্যারের আক্রমণের শিকার হচ্ছে।

ক্যাসপারেস্কি প্রতি তিন মাস অন্তর প্রতিবেদন প্রকাশ করে। প্রতিবেদনে ব্যক্তিগত কম্পিউটারে (ডেস্কটপ ও ল্যাপটপ) ভাইরাস আক্রমণে বাংলাদেশ তালিকার এক নম্বরে রয়েছে। আর স্মার্টফোনে ম্যালওয়্যার আক্রমণে রয়েছে তৃতীয় স্থানে। আগের বছরে কম্পিউটারে ভাইরাস আক্রমণে শীর্ষে এবং স্মার্টফোনে আক্রমণের ক্ষেত্রে ঢাকা ছিল চতুর্থ। এ বছরে এসে দেখা যাচ্ছে, স্মার্টফোনে আক্রমণ আগের চেয়ে বেড়েছে।

তালিকায় দ্বিতীয় উজবেকিস্তান এবং তৃতীয় স্থানে আছে ভিয়েতনাম। এর আগে ২০১৫ থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত ভিয়েতনাম কম্পিউটারে ভাইরাস আক্রমণে শীর্ষে ছিল। গত বছর বাংলাদেশ ভাইরাস আক্রমণে শীর্ষে চলে আসে।

এ ছাড়া স্মার্টফোনে ম্যালওয়্যারের আক্রমণের পরিসংখ্যানে ঝুঁকিপূর্ণ দেশের তালিকায় বাংলাদেশ রয়েছে তৃতীয় স্থানে। প্রথম স্থানে পাকিস্তান, দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে ইরান। এর আগে ফোনে ম্যালওয়্যার আক্রমণের দিক থেকে শীর্ষে ছিল চীন। তবে এ বছরে চীন মোবাইল ফোন আক্রমণের শিকার শীর্ষ দশ দেশের তালিকায় নেই।

প্রতিবেদনে দেখা যায়, বর্তমানে বাংলাদেশে প্রতি ১০০ জন স্মার্টফোন ব্যবহারকারীর মধ্যে ২৮ জনই ম্যালওয়্যারের আক্রমণের শিকার হচ্ছে। এর আগে ২০১৫ সালে এই আক্রমণের শিকার ছিল ১০ জন, ২০১৬ সালে ১৩ জন, ২০১৭ সালে ১৯ জন এবং গত বছর ২৪ জন। অর্থাৎ, বাংলাদেশে স্মার্টফোনে ম্যালওয়্যার আক্রমণের সংখ্যা বাড়ছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, বাংলাদেশ, পাকিস্তান, উজবেকিস্তান, ভিয়েতনামের মতো দেশগুলোতে কম্পিউটার অপারেটিং সিস্টেম থেকে শুরু করে ব্যবহৃত প্রায় সব ধরনের সফটওয়্যারই পাইরেটেড। এসব সফটওয়্যারের বেশিরভাগেই থাকছে নানা ম্যালওয়্যার, স্পাইওয়্যার কিংবা বটনেট। এর ফলে পুরো কম্পিউটারটাই আক্রান্ত থাকছে। এসব কম্পিউটার অনলাইনে যুক্ত হওয়ার পর ব্যবহারকারী অজান্তেই ম্যালওয়্যার, স্পাইওয়্যারের মাধ্যমে পাচার হয়ে যাচ্ছে তথ্য।

শুধু কম্পিউটারে নয়, দেশগুলোর নিজস্ব ওয়েবসাইটগুলোতেও পাইরেটেড প্লাগ ইনসহ অন্যান্য টুলস ব্যবহার করা হচ্ছে। ফলে স্প্যাম, স্ক্যামে পরিপূর্ণ থাকছে ওয়েবসাইটগুলো। অনেক ক্ষেত্রে ওয়েবসাইটটি আক্রান্ত কি-না তাও বুঝতে পারছেন না ব্যবহারকারী। ওয়েবসাইট ব্যবস্থাপনাও বেশিরভাগ ক্ষেত্রে নিরাপত্তার দৃষ্টিকোণ থেকে দুর্বল।

ক্যাসপারেস্কি ল্যাবের প্রতিবেদনে বলা হয়, বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তানসহ এ অঞ্চলের দেশগুলোতে অনলাইন ব্যাংকিং বা মোবাইল ভিত্তিক লেনদেন দ্রুত জনপ্রিয় হচ্ছে। তবে সাইবার নিরাপত্তা ব্যবস্থা এখন পর্যন্ত ঝুঁকির মধ্যেই থেকে গেছে। উন্নত দেশগুলো মোবাইল ব্যাংকিং বা অনলাইনে আর্থিক লেনদেনের নিরাপত্তা নিয়ে যতটা উদ্বিগ্ন, স্বল্পোন্নত কিংবা উন্নয়নশীল দেশগুলো ততটা চিন্তিত বলে মনে হয় না। এর ফলে খুব কম সময়ের মধ্যেই ওই সব দেশে দ্রুত বিকাশমান মোবাইল ব্যাংকিং কার্যক্রম বড় বিপদের মধ্যে পড়তে পারে।

নওগাঁ দর্পন
নওগাঁ দর্পন
এই বিভাগের আরো খবর