শনিবার   ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯   আশ্বিন ৬ ১৪২৬   ২১ মুহররম ১৪৪১

নওগাঁ দর্পন
সর্বশেষ:
পত্নীতলায় আদিবাসী প্রেমিক যুগলের লাশ উদ্ধার চাকুরির প্রলোভনে মান্দার মেয়েকে ঢাকায় ধর্ষণ বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের বহরে যুক্ত হওয়া বোয়িং (৭৮৭-৮) ড্রিমলাইনার গাঙচিল উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ধামইরহাটে মাদক সেবনের দায়ে ৬ জনের জেল ও জরিমানা আত্রাইয়ে ডেঙ্গু সচেতনতা মূলক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় সাপাহারে পরিস্কার অভিযান সাপাহার ঐতিহ্যবাহী জবই বিলে মাছের পোনা অবমুক্ত আত্রাই থানা পুলিশের অভিযানে ৯জন আটক গ্রেনেড হামলার প্রতিবাদে নিয়ামতপুরে আলোচনা সভা সাপাহারের করল্যা চাষে বিপ্লব
৩৬

দুই কমিটির দ্বন্দ্বে মামুন-জুয়েল বলির পাঠা, ছাত্রদলে অসন্তোষ!

ডেস্ক নিউজ

প্রকাশিত: ২ সেপ্টেম্বর ২০১৯  

অসাধু সিন্ডিকেটের খপ্পর থেকে বের হতে পারছে না বিএনপি। রাজপথের রাজনীতিতে বিতর্কিত সিদ্ধান্ত ও কর্মকাণ্ডের কারণে বারবার সমালোচিত হচ্ছে দলটি।

এবার ছাত্রদলের কাউন্সিলকে কেন্দ্র করে হেভিওয়েট দুই প্রার্থীর মনোনয়ন বাতিল নিয়ে বিতর্কের সৃষ্টি হয়েছে দলের অভ্যন্তরে। সভাপতি পদে মামুন খান ও সাধারণ সম্পাদক পদে জুয়েল হাওলাদারের মনোনয়ন যাচাই-বাছাই কমিটি বৈধ বলে ঘোষণা করলেও আপিল কমিটি তা বাতিল করেছে। দুই কমিটির দ্বন্দ্বে ছাত্রদলের ২ নেতার প্রার্থিতা নিয়ে এক ধরণের অনিশ্চয়তা সৃষ্টি হয়েছে। আপিল কমিটির সাথে বাছাই কমিটির নেতাদের ব্যক্তিগত দ্বন্দ্বের কারণে ছাত্রদলের নেতারা বলির শিকার হচ্ছেন বলেও নানা গুঞ্জন শোনা যাচ্ছে। অসন্তোষ বিরাজ করছে ছাত্রদলের ভোটারদের মাঝেও।

জানা যায়, শুক্রবার (৩০ আগস্ট) রাতে আপিল কমিটির পক্ষে শামসুজ্জামান দুদু ও ড. আসাদুজ্জামান রিপন স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, এ দুই প্রার্থীর প্রার্থিতা আপিল কমিটি অনুমোদন করেনি বিধায় তাদের প্রার্থিতা আর বহাল নেই। তবে কী কারণে তাদের প্রার্থিতা বাতিল করা হয়েছে তা বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়নি।

এদিকে যাচাই বাছাই কমিটির এক সদস্য বলেন, আপিল কমিটি তাদের কাজের পরিসীমার বাইরে গিয়ে কাজ করেছে। কারণ, যাচাই-বাছাই কমিটি যাকে বৈধ বলেছে তাকে আপিল কমিটি অবৈধ বলতে পারেন না। আপিল কমিটির কাজ হচ্ছে যেসব প্রার্থীদের মনোনয়ন বাতিল ঘোষণা করা হয়েছে তারা যদি আপিল করেন তা খতিয়ে দেখা। কোন যুক্তিতে, কেন তারা মামুন ও জুয়েলের প্রার্থিতা বাতিল করেছে তা যাচাই-বাছাই কমিটির বোধগম্য নয়। তারাও স্বীকার করছেন যে, ব্যক্তি আক্রোশের শিকার হয়েছেন ছাত্রদলের ২ নেতা।

অন্যদিকে, সভাপতি পদ প্রার্থী মামুন খান ও সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী জুয়েল হাওলাদার জানান, তারা ষড়যন্ত্রের শিকার। তাদের আত্মপক্ষ সমর্থনেরও সুযোগ দেয়া হয়নি। তারা জানেনই না কী কারণে তাদের প্রার্থিতা বাতিল করা হয়েছে। তবে তারা গুঞ্জন শুনেছেন, বাছাই কমিটির খায়রুল কবির খোকনের সাথে আপিল কমিটির দুদু’র পুরনো দ্বন্দ্ব রয়েছে। এছাড়া মামুন ও জুয়েল- এই দুজনই খোকনের পছন্দের প্রার্থী হওয়ায় গা-জ্বালা থেকে এমনটি করেছেন দুদু। কারণ এর আগে দুদু সমর্থিত এক বিবাহিত সভাপতি প্রার্থীকে বাতিল করায় নতুন করে খোকন-দুদু দ্বন্দ্বে জড়িয়ে পড়েন। এর দ্বন্দ্বের কারণে মামুন ও জুয়েলের কপাল পুড়েছে বলে শোনা যাচ্ছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে আপিল কমিটির সদস্য শামসুজ্জামান দুদু বলেন, মামুন ও জুয়েল দুজনই চিহ্নিত চাঁদাবাজ ও মাদকসেবী। তাদের বিরুদ্ধে মাদকের একাধিক মামলা রয়েছে। এমন অসৎ চরিত্রের নেতারা ছাত্রদলের দায়িত্ব নিলে সংগঠনের ক্ষতি হবে বলেই তাদের মনোনীত করা হয়নি।

নওগাঁ দর্পন
নওগাঁ দর্পন
এই বিভাগের আরো খবর