বুধবার   ১৯ জুন ২০১৯   আষাঢ় ৬ ১৪২৬   ১৫ শাওয়াল ১৪৪০

নওগাঁ দর্পন
২০০

জামায়াতে ইসলামীর বিষয়ে বিএনপির কাছ থেকে সুরাহা চান ড. কামাল

প্রকাশিত: ১৩ জানুয়ারি ২০১৯  

জামায়াতে ইসলামীর বিষয়ে বিএনপির কাছ থেকে সুরাহা চান জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের আহ্বায়ক ও গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন। তিনি বলেন, আমি পরিষ্কার ভাষায় বলতে চাই, জামায়াতকে নিয়ে কোনো রাজনীতি করব না আমরা। অবিলম্বে জামায়াত বিষয়ে বিএনপির কাছ থেকে সুরাহা চাই। গতকাল শনিবার রাজধানীর মতিঝিলে গণফোরাম কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

 

জামায়াত ছাড়তে বিএনপিকে চাপ দেবেন কিনা জানতে চাইলে ড. কামাল বলেন, আমি তো মনে করি সেটা বলা যেতে পারে। তিনি আরও বলেন, জামায়াতে ইসলামীকে নিয়ে আর কোনো রাজনীতি নয়। জামায়াতকে নিয়ে আমরা অতীতেও রাজনীতি করিনি, ভবিষ্যতেও করব না। এ দলটির ২২ জনকে ধানের শীষ প্রতীক দেওয়া হবে বিষয়টি আমি জানতাম না। প্রতীক দেওয়ার পর আমরা বিএনপির কাছে এর ব্যাখ্যাও চেয়েছিলাম।

 

লিখিত বক্তব্যে গণফোরামের সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মহসিন মন্টু বলেন, তাড়াতাড়ি জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট গঠন করতে গিয়ে অনিচ্ছাকৃত যেসব ভুল-ক্রটি হয়েছে তা সংশোধন করে ভবিষ্যতের জন্য সুদৃঢ় জাতীয় ঐক্য গড়ে তোলা হবে।

 

সংবাদ সম্মেলনের আগে গতকাল সকাল থেকে দিনব্যাপী গণফোরামের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির বর্ধিতসভা অনুষ্ঠিত হয়। ওই সভায় নির্বাচন কমিশন থেকে নিবন্ধন হারানো মহান মুক্তিযুদ্ধের বিরোধিতাকারী দল জামায়াতে ইসলামী ইস্যুতে প্রশ্ন তোলেন গণফোরামের অধিকাংশ নেতা।

 

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপিসহ কয়েকটি দল নিয়ে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট গড়ে তোলেন গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন। এ জোটে জামায়াত না থাকলেও দলটি বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০-দলীয় জোটে রয়েছে। নির্বাচনে ঐক্যফ্রন্ট ও ২০-দলীয় জোটভুক্ত দলগুলো বিএনপির ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করে। আদালতের একাধিক রায়ে যুদ্ধাপরাধীদের দল হিসেবে অভিযুক্ত জামায়াতে ২২ নেতাও একই প্রতীকে নির্বাচন করেন। ভোটের দিন জামায়াতের পক্ষ থেকে এই নেতাদের নির্বাচন বর্জনের ঘোষণাও দেওয়া হয়। নির্বাচনের আগে জামায়াতের সঙ্গে একই প্রতীকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করা নিয়ে বারবার প্রশ্নের মুখে পড়েন কামাল হোসেন। ১৪ ডিসেম্বর শহীদ বুদ্ধিজীবী স্মৃতিসৌধে দাঁড়িয়ে এ প্রশ্নে এক সাংবাদিককে তিনি খামোশ বলে ধমকও দেন। নির্বাচনের তিন দিন আগে ভারতীয় এক পত্রিকাকে ড. কামাল বলেন, জামায়াত নেতারা বিএনপির টিকিট পাবে জানলে তিনি ঐক্যফ্রন্টের অংশ হতেন না।

নওগাঁ দর্পন
নওগাঁ দর্পন
এই বিভাগের আরো খবর